NarayanganjToday

শিরোনাম

আইভীর চার বছর


আইভীর চার বছর

টানা দ্বিতীয় মেয়াদে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র হিসেবে শপথ নেওয়ার পর চার বছর পার করলেন ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী। দীর্ঘ এই সময়ে উন্নয়নমূলক কার্যক্রমের মাধ্যমে বিভিন্ন সময়ে আলোচনায় এসেছেন দেশের প্রথম ও একমাত্র নারী মেয়র। সারাদেশের আলোচিত এই মেয়রের উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডের স্বীকৃতিস্বরূপ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাকে উপমন্ত্রীর পদমর্যাদা প্রদান করেন। নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনে উন্নীত হওয়ার পূর্বেও নারায়ণগঞ্জ পৌরসভার মেয়র হিসেবে দীর্ঘসময় দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি।

২০০৩ সালে বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোট সরকারের আমলে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে নারায়ণগঞ্জ পৌরসভার প্রথম নারী মেয়র নির্বাচিত হন ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী। তিনি প্রয়াত পৌরপিতা আলী আহাম্মদ চুনকার কন্যা। এরপর ২০১১ সালে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন হওয়ার পর আওয়ামী লীগের মনোনয়ন না পেয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হন তিনি। ওই নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান সাংসদ একেএম শামীম ওসমানকে হারিয়ে বাংলাদেশের প্রথম ও একমাত্র নারী মেয়র নির্বাচিত হন আইভী। দ্বিতীয় দফায় ২০১৬ সালে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে নৌকা প্রতীকে নিরঙ্কুশ বিজয় পান তিনি। বিএনপির ধানের শীষের প্রার্থী সাখাওয়াত হোসেন খানকে তিনি পৌনে এক লাখ ভোটের ব্যবধানে পরাজিত করেন।

নির্বাচনের ভোটগ্রহণের দুই সপ্তাহ পর ২০১৭ সালের ৫ জুন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীকে শপথ বাক্য পাঠ করান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেদিন কলাপাতা রঙের জামদানি শাড়ি পরিহিত আইভী শপথ বাক্য পড়ার পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আলিঙ্গন করেন। একই দিনে সংরক্ষিত নয়জন নারী কাউন্সিলর ও ২৭ জন কাউন্সিলরকে শপথ পড়ান স্থানীয় সরকারমন্ত্রী খন্দকার মোশারফ হোসেন। পরে নতুন মেয়র ও কাউন্সিলরদের নিয়ে ফটোসেশনে অংশ নেন প্রধানমন্ত্রী। শপথ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের বর্তমান সাংসদ একেএম সেলিম ওসমান।

শপথের পর বেরিয়ে এসে আইভী সাংবাদিকদের বলেন, নারায়ণগঞ্জকে তিনি ‘গ্রিন ও ক্লিন সিটি’ হিসেবে গড়ে তুলতে চান, যেখানে বজায় থাকবে শান্তি। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ীই তিনি কাজ করবেন। এই চার বছরে তিনি নারায়ণগঞ্জকে সবুজায়ন করার ক্ষেত্রে বিভিন্ন কাজ করেছেন। শহরের বুকে নির্মাণ করেছেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কনিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেলের নামে পার্ক। এই পার্কটির কাজ এখনও চলমান রয়েছে। মৃতপ্রায় ঐতিহ্যবাহী বাবুরাইলকে খালকে উদ্ধার করে দৃষ্টিনন্দন লেক নির্মাণে উদ্যোগ নিয়েছেন। এই খাল পুনরুদ্ধার ও সৌন্দর্যবর্ধনের কাজ চলমান রয়েছে। এছাড়া সিটি কর্পোরেশনের সিদ্ধিরগঞ্জ অঞ্চলে ডিএনডি খাল সংস্কারে ১০০ কোটি টাকার প্রকল্প দিয়েছেন। শহরের দুই নম্বর রেলগেইট এলাকায় নির্মাণ করেছেন বঙ্গবন্ধু চত্ত্বর। সেখানে রয়েছে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য। শহরের বুকে বঙ্গবন্ধুর প্রথম ভাস্কর্যটি নির্মাণ করেন তিনি। পরিচ্ছন্নকর্মীদের জন্য নির্মাণ করছেন ভবন। এছাড়া সিটি কর্পোরেশনের শহর, সিদ্ধিরগঞ্জ ও কদমরসূল; এই তিন অঞ্চলেই কয়েকশ’ কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্পের অনুমোদন ইতিমধ্যে দেওয়া হয়েছে। উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডের কারণে নারায়ণগঞ্জের মানুষের কাছে জনপ্রিয় এক নাম ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী। একইসাথে সন্ত্রাস, চাঁদাবাজ, দখলদারিত্বের বিরুদ্ধে সর্বদা সোচ্চার কন্ঠস্বর বলেও দেশব্যাপী পরিচিতি রয়েছে।

২০১৬ সালের পহেলা আগস্ট কোরিয়া থেকে প্রকাশিত প্রভাবশালী সাময়িকী ‘দ্যা এশিয়ান’ এশিয়ার প্রভাবশালী নারী মেয়রদের তালিকা প্রকাশ করে। এ তালিকায় সাত নম্বরে স্থান পান নাসিক মেয়র আইভী। দ্য সিটি মেয়র ফাউন্ডেশন নামে একটি অলাভজনক প্রতিষ্ঠান ২০১৮ সালে ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীকে ‘ওয়ার্ল্ড মেয়র’ হিসেবে মনোনীত করে।

উপরে