NarayanganjToday

শিরোনাম

না.গঞ্জে সিলিন্ডার বিস্ফোরণে দগ্ধ শিশুর মৃত্যু


না.গঞ্জে সিলিন্ডার বিস্ফোরণে দগ্ধ শিশুর মৃত্যু

ফতুল্লার মাসদাইরে এলপি গ্যাস সিলিন্ডারের লিকেজ থেকে ফ্ল্যাটের ভেতর জমা গ্যাস বিস্ফোরণে আরও একজনের মৃত্যু হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১১ মার্চ) দুপুরে গুরুতর দগ্ধ ১২ বছর বয়সী মাহফুজুলের মৃত্যু হয়। একই ঘটনায় গুরুতর দগ্ধ হয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজের শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন এন্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি নারী ও শিশুসহ আরও চারজন।

মাহফুজুলের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন তার ফুফা মো. সুলতান। তিনি বলেন, দুপুর একটার দিকে তার শ্যালক জামালের ছেলে মাহফুজুলের মৃত্যু হয়। মাহফুজুল ফতুল্লার মাসদাইরের ১০৫নং বেগম রোকেয়া খন্দকার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র ছিল। তার লাশ হাসপাতাল থেকে নিয়ে আসা হচ্ছে। এর আগে মঙ্গলবার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে মৃত্যু হয় মাহফুজুলের দুলাভাই (বোনের স্বামী) মোহাম্মদ মিশালের। মিশাল ও মাহফুজুলের শরীরের যথাক্রমে ৯০ ও ৮০ শতাংশ পুড়ে গিয়েছিল।

গত ৮ মার্চ দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে ফতুল্লার এনায়েতনগর ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের পশ্চিম মাসদাইর ছায়াবীথি আবাসিক এলাকার সৌদি প্রবাসী আকবর হোসেনের মালিকানাধীন হাজী ভিলা নামে ভবনের ষষ্ঠ তলার একটি ফ্ল্যাটে এ বিস্ফোরণ ঘটে। এই ফ্ল্যাটে স্ত্রী, সন্তান ও পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিয়ে বসবাস করতেন পোশাক শ্রমিক মোহাম্মদ মিশাল (২৮)। এই ঘটনায় মিশাল ছাড়াও তার স্ত্রী মিতা (২৪), মেয়ে আফসানা (৫), ছেলে মিনহাজ (১৮ মাস), দুই শ্যালক মাহফুজুল (১২) ও সাব্বির (১৫)। তাদের মধ্যে মিতার ১৪ শতাংশ, আফসানার ১০ শতাংশ, মিনহাজের ৫০ শতাংশ, মাহফুজুলের ৮০ শতাংশ এবং সাব্বিরের শরীরের ৪২ শতাংশ দগ্ধ হয়।

মিতার ফুফাতো বোন ফারজানা আক্তার বলেন, ছয়তলায় পরিবার নিয়ে থাকতেন মিশাল। একটি পোশাক কারখানায় কাজ করতেন তিনি। ঘরে এলপি গ্যাসের সিলিন্ডার ছিল। সিলিন্ডারের পাইপের লিকেজ থেকে গ্যাস বেরিয়ে জমেছিল ঘরে। রাতে মিশাল দেয়াশলাই দিয়ে চুলা ধরাতে গ্যাসে বিকট শব্দে বিস্ফোরণ ঘটে। এতে দগ্ধ হয় নিহত মিশালসহ তার পরিবারের ছয় সদস্য। নিহত মিশালের লাশ দাফনের ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

উপরে