NarayanganjToday

শিরোনাম

নারায়ণগঞ্জে ‌সি‌লিন্ডার বি‌স্ফোর‌ণে নিহত ১


নারায়ণগঞ্জে ‌সি‌লিন্ডার বি‌স্ফোর‌ণে নিহত ১

নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের বিপরীত পাশে একটি দোকানে অগ্নিনির্বাপন যন্ত্রে গ্যাস ভরার সময় বিস্ফোরণে নিহত হয়েছেন এক ব্যক্তি৷

বৃহস্পতিবার (৭ জানুয়ারি) দুপুর ১টার দিকে এ বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে৷

নিহত ব্যক্তির নাম রফিক উল্লাহ (৫০)৷ তিনি লক্ষ্মীপুর সদরের টুমচর গ্রামের বাসিন্দা মৃত মমিন উল্লাহর ছেলে৷ জেলা পরিষদের বিপরীত পাশে ফকির গার্মেন্টস সড়কের প্রবেশমুখে সেফটি ফার্স্ট প্রটেকশন নামে দোকানটির কর্মচারী ছিলেন রফিক উল্লাহ৷ রিয়াজ নামে এক ব্যক্তি এই দোকানের মালিক৷ ড্রিম হাউস নামে সাততলা ভবনের নিচতলায় এই দোকানে অগ্নিনির্বাপন যন্ত্র বিক্রয় ও গ্যাস রিফিলিং করা হতো৷

ড্রিম হাউজ নামে সাততলা ভবনটির সিকিউরিটি গার্ড হাবিবুর রহমান বলেন, বিস্ফোরণের বিকট শব্দে বেরিয়ে এসে শরীরের উপরের অংশ ক্ষতবিক্ষত অবস্থায় রফিক উল্লাহকে পড়ে থাকতে দেখেন৷ পরে স্থানীয়দের মাধ্যমে পুলিশে খবর দেন তিনি৷

হাবিবুর রহমান জানান, যৌথভাবে এই ভবনের মালিক ১৮ জন৷ তাদের মধ্যে মূল দায়িত্বে রয়েছেন হান্নান ভূইয়া নামে এক ব্যক্তি৷ গত ৬ বছর যাবত আবাসিক এই ভবনের নিচতলায় অগ্নিনির্বাপন যন্ত্র বিক্রি ও গ্যাস রিফিলিংয়ের দোকানটি চলছে৷

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে এসে পৌছায় ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশ ও নারায়ণগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্সের সদস্যরা৷ নারায়ণগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্সের উপ সহকারী পরিচালক আব্দুল্লাহ আল আরেফিন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে জানান, একটি পুরাতন অগ্নিনির্বাপক যন্ত্রের সিলিন্ডারে কার্বন ডাই অক্সাইড গ্যাস রিফিল (পুনরায় ভর্তি) করার সময় বিস্ফোরণের ঘটনাটি ঘটে৷ যন্ত্রের বডি পুরোনো থাকায় গ্যাসের চাপে এ বিস্ফোরণ ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে৷

ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসলাম হোসেন জানান, অগ্নিনির্বাপন যন্ত্র বিক্রি ও গ্যাস রিফিলিং করার জন্য দোকানটির অনুমোদন ছিল কিনা তা তদন্ত করা হচ্ছে৷ দোকানের মালিককে থানায় ডাকা হয়েছে৷

ওসি বলেন, লাশ উদ্ধার করে নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে৷ স্বজনদের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী মামলার বিষয়ে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে৷

উপরে