NarayanganjToday

শিরোনাম

এগুলি গণায় ধরিনা: শামীম ওসমান


এগুলি গণায় ধরিনা: শামীম ওসমান

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ একেএম শামীম ওসমান বলেছেন, অনেকেই দখলবাজি করে নারায়ণগঞ্জে। সবার জায়গাই দখল কইরা ফালায়। দখল করে কারে কারে যেন দেয়। বাদলের আত্মীস্বজনদের দেয় কিনা আমি জানি না। চন্দকে বরিশাল পাঠায়। আমাকে দাউকান্দি পাঠায়। যারে পারে পাঠাক অসুবিধা নাই। আমার কোন রাগ নাই। যে যা ভালো মনে করে বলুক। মুখ আছে বলবেই। মহল্লায় কত মানুষ দৌড়াদৌড়ি করে। রাস্তায় রাস্তায় ঘুরে ঘেউ ঘেউ করে। এদেরকে কি আর বলা যায় যে  ঘেউ ঘেউ করিস না।

রবিবার (২৭ ডিসেম্বর) বিকেলে ফতুল্লার নাসিম ওসমান মেমোরিয়াল  পার্ক(নম পার্ক) ফতুল্লা থানা আওয়ামীলীগ আয়োজিত কর্মী সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব বলেন।

তিনি বলেন,হাজার হাজার বছরে একজন নেনসল মেন্ডালা আসে, একজন লেনিন আসে, একজন মহাত্মাগান্ধী আসে, একজন জাতির পিতা শেখ মুজিব আসে। আর বছরে বছরে খন্দকার মোস্তাক- মীর জাফরের বংশধর আসে। নারায়ণগঞ্জেও কিন্তু এদের বংশধর আছে। যারা এই গেইম খেলতেছে তাদের আনাগোনা নারায়ণগঞ্জে খুব বেশি। আওয়ামী লীগের পরিবারকে বিভক্ত করতে চায়। নারায়ণগঞ্জে আওয়ামী লীগের পরিবার কখনো বিভক্ত হবে না। আস্তে আস্তে তাদের স্বরূপ বের হচ্ছে। কোন জায়গায় তাদের লাইন আপ। এইগুলি গণায় ধরি না।

এসময় ফতুল্লা থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি সাইফুল্লাহ বাদলের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক এম শওকত আলী'র সঞ্চালনায় আরো উপস্থিত ছিলেন, নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এড. আবু হাসনাত শহীদ মোঃ বাদল, নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এড. খোকন সাহা,  যুগ্ম সম্পাদক শাহ নিজাম, নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মীর সোহেল, নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবলীগের সভাপতি শাহাদাৎ হোসেন ভূইয়া সাজনু, মহানগর সেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি জুয়েল হোসেন, নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সাফায়েত আলম সানী প্রমুখ।

উপরে