NarayanganjToday

শিরোনাম

মসজিদ মন্দিরসহ সদর ও ফতুল্লায় ৫ হাজার মাস্ক বিতরণ করলো আনসার বাহিনী


মসজিদ মন্দিরসহ সদর ও ফতুল্লায় ৫ হাজার মাস্ক বিতরণ করলো আনসার বাহিনী

বলতে না বলতেই খুব কাছাকাছি চলে এসেছে করোনার দ্বিতীয় ধাপ। এরই মধ্যে নারায়ণগঞ্জসহ সারাদেশে বাড়তে শুরু করেছে করোনা শনাক্ত ও ঠান্ডা জনিত রোগীর সংখ্যা। অনেকেই এ বিষয়ে সচেতন হলেও বিশেষ করে খেটে খাওয়া মানুষগুলোর মধ্যে এ নিয়ে নেই কোন আতঙ্ক। ফলে মাস্ক ছাড়া এবং কোন প্রকার স্বাস্থ্য বিধি না মেনেই তাদেরকে  পথে ঘাটে চলাচল করতে দেখা যায়।
এ বিষয়টি মাথায় রেখে নারায়ণগঞ্জে সকল বাহিনী ও সংস্থার আগে মাঠে নেমেছেন নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা আনসার ভিডিপি। শনিবার (১৪ নভেম্বর) দুপুর থেকে সদর উপজেলাধীন বিভিন্ন স্থানে এ বাহিনীর সদস্যরা বিনামূল্যে মাস্ক বিতরণের মধ্যদিয়ে মাঠে নামেন। নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা আনসার ভিডিপির অফিসার (অতিরিক্ত দায়িত্ব প্রাপ্ত) অজিত কুমার দাসের নেতৃত্বে ফতুল্লা ও সদর থানাধীন এলাকায় বিভিন্ন মসজিদ, মন্দির, হাট, বাজার, লঞ্চঘাট, খেয়াঘাট ও রেলস্টেশনের যাত্রী সাধারনসহ পথচারি ও শিশুদের মাঝে এ মাস্ক বিতরণ করা হয়। এসময় করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় ধাপ সম্পর্কে সাধারন মানুষকে সচেতন হওয়ারও পরামর্শ দেয়া হয়। সব মিলিয়ে প্রায় ৫ হাজার পথচারিদের মাঝে এ মাস্ক বিতরণ করা হয়।
এসময় নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা আনসার ভিডিপির অফিসার (অতিরিক্ত দায়িত্ব প্রাপ্ত) অজিত কুমার দাস সাংবাদিকদের বলেন, আপনারা জানেন আমরা তথা নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা আনসার ভিডিপি সেই লকডাউন থেকে শুরু করে আজ পর্যন্ত করোনা ভাইরাস সংক্রামণরোধে কাজ করে চলেছে। আমরা সেই সময়ে লক ডাউন বাস্তবায়ন করার কাজ, সরকারি ত্রাণ বাড়ী বাড়ী পৌছে দেয়া ও জনসচেতনায় লিফলেট বিতরণসহ জনসমাগমরোধে আমাদের অভিযান ছিলো নিয়মিত।
তিনি বলেন, আজ নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা আনসার ভিডিপির নিজস্ব উদ্যোগে ৫ হাজার পথচারিদের মাঝে বিনামূল্যে মাস্ক বিতরণ করতে পেরে সত্যিই ভীষণ আনন্দ লাগছে। কেননা, প্রতিটি ভালো কাজেই আনন্দ থাকে। আমরা চেষ্টা করবো এর ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে। মানুষ ভালো থাকলে, সুস্থ্য থাকলে, দেশও ভালো থাকবে বলে আমি বিশ্বাস করি।
তিনি আরও বলেন, করোনার দ্বিতীয় ধাপ চলে এসেছে। এখন আমাদেরকে আরও বেশি সাবধান হতে হবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ইতিমধ্যেই এই দ্বিতীয় ধাপে মাঠ পর্যায়ে প্রস্তুত থাকার জন্য সকল প্রশাসনকে নির্দেশ প্রদান করেছেন। তার নির্দেশক্রমে আমরা আনসার ভিডিপি বাহিনীও যেকোন দূর্যোগ মোকাবেলায় প্রস্তুত রয়েছি। তারপরও আমি বলবো, সবাইকে অবশ্যই করোনা ভাইরাসের বিষয়ে আরও বেশি সিরিয়াস হতে হবে, সচেতন হতে হবে এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। নয়তো, পরিনতি আরও খারাপের দিকে যেতে পারে।
এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন, সদর উপজেলা প্রশিক্ষক খায়রুল আলম, দলপতি তারক ঘোষ, মৌ দাস, ওয়ার্ড দলনেত্রী হাবিবা, প্লাটম কমান্ডার রমজান, ওলিউল্লাহ্, সাইফুল, আবুল কালাম, রিয়াজ, সহকারি প্লাটম কমান্ডার মশিউর রহমান, মহাপরিচালকের এফএস হুমায়ুন, জহিরুল, আনসার রানা প্রমূখ।

 

উপরে